Templates by BIGtheme NET

বিএনপিকে প্রতিহত করার ঘোষণা আ’লীগ নেতাদের

ঢাকা: বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিজোটকে শুধু প্রতিরোধ নয়, প্রতিহত করতে হবে বলে  জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা।

সোমবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে এক প্রতিবাদ সমাবেশে তারা এ কথা বলেন। ২০০৪ সালের এই দিনে (১৭ আগস্ট) দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশের আয়োজন করে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ।

নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুকুল চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক হাজী মো. সেলিম এমপি প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বিএনপি-জামায়াতের আমলে সিরিজ বোমা হামলা, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ বিভিন্ন জঙ্গি হামলার তথ্য তুলে ধরে তাদের প্রতিহত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার মিথ্যে জন্মদিন পালন করার অপরাধে পাকিস্তানি আখ্যা দিয়ে তাকে সেখানে পাঠিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, বিএনপি ৭১’র পরাজিত শক্তি ও তাদের পশ্চিমা মিত্রদের মাধ্যমে ষড়যন্ত্র করে ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসেছে। এরপর থেকে তারা দেশকে একটি জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছে। ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলা, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে নিজেদের অবস্থান জানান দিয়েছিলো তারা। সেই সময় তারা দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছিলো। সেই বিএনপি এখনও ষড়যন্ত্রে সক্রিয় আছে। তারা গুলশান এবং লন্ডনে বসে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে। এই ষড়যন্ত্রকারীদের (বিএনপি) শুধু প্রতিরোধ নয়, প্রতিহত করতে হবে। যাতে বাংলাদেশে আর কোনোদিন জঙ্গিবাদী শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে।

হানিফ বলেন, যে সব বিএনপি নেতা এটাকে সমর্থন করেন, তারাও পাকিস্তানি ভাবধারায় বিশ্বাসী। পাকিস্তানি প্রেতাত্মা। তারা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতার জন্মবার্ষিকীতে কেক কাটেন না। কোনো সিনিয়র নেতারও জন্মদিন পালন করেন না। পাকিস্তানি এজেন্ট হিসেবে, পাকিস্তানের প্রেসক্রিপশনে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকীতে খালেদা জিয়ার কেক কেটে উৎসব করেন।

সমাবেশে ত্রাণমন্ত্রী ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, ‘খালেদা জিয়া মিথ্যার উপর অনেক রাজনীতি করেছেন। অনেক সময় সফলও হয়েছেন। এবার ধরা খাইছেন। তিনি নায়িকা অঞ্জু ঘোষের মত সেজে পোলাপাইন নিয়ে গভীর রাতে জন্মদিন পালন করেছেন। ওই সময় একজন সিনিয়র নেতাও ছিল না। এই কাজ কোনো বিবেকবান মানুষ করতে পারে না। তিনি হয় পাগল, না হয় মতলবি। তিনি যুদ্ধাপরাধী ও বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সাহায্য ও উৎসাহিত করতে এই জন্মদিন পালন করেছেন।

খাদ্যমন্ত্রী ও নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক কামরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিজোট বাংলাদেশকে পাকিস্তানের মত তালেবানি রাষ্ট্র করতে চায়। তাদের স্থান বাংলার মাটিতে নাই। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম। বাংলার মাটি থেকে তাদের উৎখাত করতে হবে।

teletalk

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful