Templates by BIGtheme NET
bangla24live.com

আওলাদ হোসেনের জানাজায় যে কারনে অংশ নেননি শাকিব খান (ভিডিও)

বিনোদন ডেস্ক: সদ্য প্রয়াত বিশিষ্ট বিনোদন সাংবাদিক আওলাদ হোসেন গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে না ফেরার দেশে চলে গেছেন। বরেণ্য এ সাংবাদিকের মৃত্যুতে শোবিজ অঙ্গনে নেমে আসে শোকের ছায়া। তবে বিএফডিসিতে তার জানাজার নামাযে অংশ না নেওয়া দারুণভাবে সমালোচিত হন চিত্রনায়ক শাকিব খান। এ নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে।

এই সাংবাদিককে ভালোবাসা আর অশ্রুজলে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মাননীয় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব এ কে এম জাহাঙ্গীর খান, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, কাজী হায়াত, বাচসাস সভাপতি আবদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল করিম নিশান, পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার। ছিলেন মতিন রহমান, শাহ আলম কিরণ, মাসুম বাবুল, এম এন ইস্পাহানী আরিফ জাহান, এস এ হক অলিক, সুদীপ দে, দেবাশীষ বিশ্বাস, জয়নাল আবেদীন, মোস্তাফিজুর রহমান মানিক, শাহীন কবির টুটুল, মোহাম্মদ মোস্তাফা কামাল রাজসহ আরো অসংখ্য চিত্র পরিচালক। চিত্র তারকাদের মধ্যে উজ্জল, নূতন, রুবেল, আমিন খান, মৌসুমী, ওমর সানি, মিশা সওদাগর, পপি, কাজী মারুফ, কেয়া, জায়েদ খান, নিপুণ, সাইমন, আরজু, শাহ রিয়াজসহ আরো অনেকেই। ছিলেন অগুনতি সাংবাদিকরাও।

আওলাদ হোসেনের মরদেহের সামনে দাঁড়িয়ে চোখের জল মুছতে দেখা গেছে এফডিসির দারোয়ান, কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরও। দেশে থাকতে না পারায় নায়ক মান্নার স্ত্রী শেলী মান্না শোকবার্তা পাঠিয়েছেন ভারত থেকে। নায়ক অনন্ত জলিল ব্যবসায়িক কারণে দেশের বাইরে থাকায় তার ব্যক্তিগত সহকারী সজীবকে পাঠিয়েছেন। নিজে ফেসবুকে শোক বানী দিয়েছেন। এছাড়া সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রায় সব মানুষের ফেসবুক দেওয়াল হয়ে উঠেছিল শোক বই।

একটি অনলাইন মাধ্যমে প্রকাশিত হয়, ঐদিন এফডিসিরই ২ নম্বর ফ্লোরের মেকআপ রুমে বসে অলস সময় পার করলেও দেখা দিলেন না শাকিব খান! জানা গেছে, নতুন ছবি ‘ধুমকেতু’র শুটিং করতেই সেদিন এফডিসিতে ছিলেন শাকিব। আওলাদ হোসেনের মরদেহ এফডিসিতে পৌঁছালে তার ছবির পরিচালক শফিক হাসান নিজে শুটিং বন্ধ করে চলে এসেছিলেন প্রশাসনিক ভবনের সামনে তাকে শেষ বিদায় জানাতে। কিন্তু শাকিব এলেন না। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা তুঙ্গে উঠেছে। সাংবাদিক থেকে শুরু করে চলচ্চিত্র পরিচালক ও তারকারাও এজন্য নিন্দা জানিয়েছেন। আর সোশাল মিডিয়ায় শাকিবকে অসামাজিক বলেও দাবি করছেন অনেকে। কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছেন- শাকিবের সময়ের মূল্য কি একজন তথ্যমন্ত্রীর চেয়েও বড়? কেউ আবার শাকিবের শিক্ষা ও পারিবারিক স্ট্যাটাসের দিকেও আঙুল তুলেছেন। তাদের বক্তব্য, দেশের একজন শীর্ষ নায়ক হিসেবে তো বটেই চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি হিসেবেও আওলাদা হোসেনকে দেখতে আসাটা দায়িত্ব ছিলো শাকিবের। অবশ্য শাকিবের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ নতুন নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার এফডিসিতে উপস্থিত থেকেও সেখানে অনুষ্ঠিত হওয়া বেশ ক’জন চলচ্চিত্র শিল্পীদের জানাযায় আসেননি শাকিব।

শাকিব খান গত শুক্রবার বিএফডিসিতে অবস্থান করলেও মোহাম্মদ আওলাদ হোসেনের জানাজায় অংশ নেননি। এ প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, ‘এ বিষয়টি নিয়ে লেখালেখি করাটা খুবই দুঃখজনক। আমি আওলাদ ভাইকে আজ থেকে চিনি না। অনেক আগে থেকে আমি তাকে চিনি। তিনি আমাকে বিভিন্ন সময় উপদেশও দিতেন। আওলাদ ভাইয়ের সঙ্গে অনেক স্মৃতি আছে। আজ তিনি নেই এটা কি আমার খারাপ লাগছে না? এটা নিয়ে কে বা কারা লিখছেন আমি জানি না। তবে আওলাদ ভাই এ ধরনের বিষয় নিয়ে কখনও লিখেননি। এ জন্যই তিনি ‘আওলাদ ভাই’।’

শিল্পী সমিতির সভাপতি হয়েও কেন তিনি জানাজায় অংশ নিলেন না এমন প্রশ্নের জবাবে শাকিব খান বলেন, ‘শিল্পীদের পক্ষ থেকে সমিতির সাধারণ সম্পাদক সেখানে গিয়েছিলেন। আমি মুত্যু ব্যক্তিকে দেখতে পারি না। তা ছাড়া আমার এতটাই খারাপ লেগেছে যে মৃত ‘আওলাদ ভাই’কে চোখে দেখার মতো মানসিক শক্তি আমার ছিল না।’

মৃত্যুকালে তিনি শাহবাজ হোসেন মুন ও অপরাজিতা হোসেন মীম নামে দুই সন্তান রেখে গেছেন। ছেলে ও মেয়ে দুজনেই বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজে ডাক্তারি পড়ছেন।

 

teletalk

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful